একটি গৌরবময় ও অনুকরণীয় জীবন

বর্তমান আক্রমণের মোকাবিলা  জ্যোতি বসুর দেখানো পথেই 

প্রকাশ কারাত

জ্যোতি বসুর মতো একজন অসাধারণ কমিউনিস্ট নেতার জন্মশতবর্ষ, সারা জীবন ও কাজের মধ্যে দিয়ে তিনি যে উল্লেখ্যযোগ্য অবদানগুলি রেখে গেছেন, তার মূল‌্যায়ন করা এবং রাজনৈতিক জীবনে তিনি যে কৃতিত্ব অর্জন করেছেন ও যে শিক্ষা দিয়েছেন, তার হিসাব টানার একটি উপলক্ষ হতে পারে। নতুন প্রজন্মের কমিউনিস্ট ও প্রগতিশীলদের শিক্ষিত করতে এই মূল‌্যায়ন অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে, যাতে তাদের সামাজিক রূপান্তরের লক্ষ্যে নিরবচ্ছিন্নভাবে উদ্যমী হওয়ার ক্ষেত্রে এই শিক্ষা সাহায্য করতে পারে।

জ্যোতি বসু তাঁর জীবদ্দশাতেই একজন কিংবদন্তী কমিউনিস্ট নেতায় পরিণত হয়েছিলেন। কমিউনিস্ট আন্দোলনে জ্যোতি বসুর মতো আর এমন কোনো নেতা নেই যাকে গোটা দেশের মানুষ জানতেন এবং  শ্রদ্ধা করতেন। কিভাবে এটা সম্ভব হলো?

জ্যোতি বসুর নাম বামপন্থী রাজনীতি ও সমস্ত মৌলিক আন্দোলনের মূল স্রোতের সঙ্গে সমার্থক হয়ে উঠেছিল। একজন কমিউনিস্ট হিসাবে তাঁর গোটা জীবনকাল জুড়েই তিনি শ্রমিক শ্রেণীর আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ব্রিটেন থেকে ফেরার পরেই তিনি কমিউনিস্ট পার্টিতে যোগ দেন এবং সরাসরি রেল শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়নে কাজ শুরু করেন। জীবনের শেষ বছরগুলিতেও তিনি সি আই টি ইউ-র একজন নেতা হিসাবে থেকে গিয়েছিলেন।

জ্যোতি বসু কৃষক আন্দোলনেরও একজন প্রতীকে পরিণত হয়েছিলেন, যখন তিনি ১৯৬৭-৭০ সালের মধ্যে দুটি যুক্তফ্রন্ট সরকারকে জমির আন্দোলনকে বিকশিত করার কাজে ব্যবহার করেছিলেন। একইভাবে বামফ্রন্ট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবেও তিনি ব্যাপক ভূমি সংস্কারের লক্ষ্যে পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। সুতরাং, তাঁর রাজনৈতিক কার্যকলাপ শ্রমিক ও কৃষক, উভয় আন্দোলনের সঙ্গেই ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিল।

আইনসভার ভেতরে কাজের সঙ্গে বাইরের গণ-আন্দোলন ও শ্রমিক আন্দোলনের যেভাবে তিনি সম্পৃক্তি ঘটিয়েছিলেন, তা ছিল জ্যোতি বসুর স্বাতন্ত্র্যসূচক অবদানগুলির মধ্যে একটি।  স্বাধীনতার আগেই, ১৯৪৬ সালে বাংলার আইনসভায় জ্যোতি বসু নির্বাচিত হয়েছিলেন। তখন থেকে পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে তিনি আইনসভায় তাঁর উপস্থিতিকে বাইরে গণ-আন্দোলন ও পার্টির প্রভাবকে শক্তিশালী  এবং আরও উন্নত করতে কাজে লাগিয়েছিলেন। ১৯৪৭ সালে বাংলার কৃষকদের তেভাগা আন্দোলন যখন শুরু হলো, তখন প্রাথমিক রিপোর্ট সংগ্রহের জন্য জ্যোতি বসু সেই সব জেলাগুলিতে ব‌্যাপকভাবে ঘুরেছিলেন এবং বিধানসভায় তা কার্যকরীভাবে উত্থাপন করেছিলেন।

১৯৫৩সালে জ্যোতি বসু অবিভক্ত কমিউনিস্ট পার্টির প্রাদেশিক কমিটির সম্পাদক হন এবং ১৯৬১সাল পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্বে ছিলেন। এই আট বছরে ১৯৫৯সালের খাদ্য আন্দোলনের মতো বড় বড় আন্দোলন সংগঠিত হয়েছিল, যেখানে পুলিসী আক্রমণে ৮০জনের মৃত্যু হয়েছিল। পার্টির সম্পাদক হিসাবে জ্যোতি বসু যেমন এই আন্দোলনের সম্মুখভাগে ছিলেন, তেমনি জনগণের খাদ্যের দাবিকে নিরলসভাবে বিধানসভার ভেতরে উত্থাপন করেছিলেন।

এর আগে, ১৯৫৪সালের ফেব্রুয়ারিতে যখন স্কুল শিক্ষকদের ধর্মঘট হলো, তখন পার্টি ও শিক্ষক সংগঠনের অনেক নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। জ্যোতি বসুকেও গ্রেপ্তারের জন্য পরোয়ানা জারি করা হয়েছিল এবং তাঁকে গ্রেপ্তারের জন্য বিধানসভার অধিবেশনের প্রথম দিন ভবনের বাইরে পুলিস কড়া নজর রেখেছিল। জ্যোতি বসু কৌশলে বিধানসভা ভবনের ভেতরে ঢুকে পড়েন এবং প্রায় এক সপ্তাহ ধরে এই ভবনের ভেতরেই থেকে যান, যেহেতু পুলিস এর ভেতরে ঢুকতে পারে না। বিধানসভার ভেতরে শিক্ষক ধর্মঘটের বিষয়টি তিনি সফলভাবে তুলে ধরতে সক্ষম হন। পরে শিক্ষকদের সমাবেশে যোগ দেওয়ার জন্য তিনি বের হন এবং পুলিসের কাছে গ্রেপ্তার হন। একজন বিধায়ক হিসাবে, শ্রমজীবী জনগণের স্বার্থকে উর্ধ্বে তুলে ধরতে কিভাবে জ্যোতি বসু বিধানসভাকে ব্যবহার করেছিলেন, এটা তার একটি উল্লেখযোগ্য উদাহরণ।

ব্যক্তিগতভাবেও জ্যোতি বসু অসীম সাহসের অধিকারী ছিলেন। ১৯৬৯সালের জুলাই মাসে, তিনি যখন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন, একটি সংঘর্ষে একজন পুলিস নিহত হওয়ায় প্ররোচিত হয়ে এক দঙ্গল পুলিস বিধানসভা ভবন আক্রমণ করতে ভেতরে ঢুকে পড়ে।  তারা বিধানসভার আসবাবপত্র ভাঙচুর করতে করতে জ্যোতি বসুর ঘরে ঢুকে পড়ে। জ্যোতি বসু শান্তভাবে এই তান্ডবরত পুলিসবাহিনীকে মোকাবিলা করেন এবং অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে তাদের এধরণের আচরণ বন্ধ করতে বলেন। তাঁর স্থৈর্য দেখে হতচকিত হয়ে উত্তেজিত পুলিসের দলটি ধীরে ধীরে তাঁর ঘর ছেড়ে চলে যায়।

রাজ্য সরকারে কমিউনিস্টদের অংশগ্রহণের মধ্যে দিয়ে কিভাবে গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে শক্তিশালী করার কাজে ব্যবহার করা উচিত, তা জ্যোতি বসুই দেখিয়েছিলেন।  ১৯৬৭-৭০ সালের মধ্যে দু’টি স্বল্পকালস্থায়ী যুক্তফ্রন্ট সরকারের সময়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসাবে তিনি পুলিসকে শ্রমিক ও কৃষকদের আন্দোলনে হস্তক্ষেপ করতে দেননি। জমির আন্দোলনে বাংলা যখন ভেসে গিয়েছিল, তখন জ্যোতি বসু ঘোষণা করেছিলেন যে সমস্ত কৃষক বেনাম জমি চিহ্নিত করছেন এবং তা দখল করছেন, তাদের কাজে সরকার বাধা হয়ে দাঁড়াবে না। এই সব অভিজ্ঞতাই রাজ্য সরকারে কাজ করতে গিয়ে সি পি আই (এম)-র দৃষ্টিভঙ্গি ও কৌশল কী হবে, তা প্রণয়ন করতে সাহায্য করেছে।

জ্যোতি বসুর জীবনের সবচেয়ে বড় অবদান ১৯৭৭ সালে পশ্চিমবাংলায় বামফ্রন্ট সরকার গঠনের মধ্যে দিয়েই এসেছে, যার তিনি মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। তিন দশকের বেশি সময় ধরে বামফ্রন্ট সরকার টিঁকে থাকার উল্লেখযোগ্য রেকর্ড গড়ার পিছনে এই সরকারের নেতৃত্বে একটানা ২৩ বছর জ্যোতি বসুর থাকার অবদানও অনেক। তাঁর নেতৃত্বেই ভূমি-সংস্কারের পরিকল্পনা তৈরি হয়েছিল এবং রূপায়িত হয়েছে। গোটা দেশে পথ-দেখানো এই সংস্কারের ফলে ১১লক্ষ একর জমি ২৫লক্ষ ভূমিহীন ও প্রান্তিক কৃষকের মধ্যে বন্টন করা সম্ভব হয়েছে এবং ১৫ লক্ষ ৩০ হাজার বর্গাদার বা ভাগচাষী নথিভূক্ত হয়েছেন ও নির্দিষ্ট সময়ের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা হয়েছে।

ভূমি-সংস্কারের পাশাপাশি ত্রিস্তর পঞ্চায়েতী ব্যবস্থার মাধ্যমে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণকে পুনরুজ্জীবিত করা হয়েছে। ৭৩তম ও ৭৪তম সংবিধান সংশোধনের অনেক আগেই পশ্চিমবঙ্গ পঞ্চায়েতী ব্যবস্থার গণতান্ত্রিকীকরণের পথ দেখিয়েছে। রাজ্যে ধর্মনিরপেক্ষ বাতাবরণ তৈরির মতো একটি কৃতিত্বকে আজকাল এমনিই হয়ে গেছে বলে ধরে নেওয়া হয়। অথচ, স্বাধীনতার আগে, বাংলা সাম্প্রদায়িক রাজনীতিকে প্রত্যক্ষ করেছে এবং দেশভাগের মধ্যে দিয়ে বিরাট আকারের সাম্প্রদায়িক হিংসার সাক্ষী থেকেছে। কিন্তু বামপন্থী রাজনীতির উত্থান এবং বামফ্রন্টের সরকার গঠন একটি বড় রকমের রূপান্তরের ভিত্তি স্থাপন করে। জ্যোতি বসু শুধু পশ্চিমবঙ্গেই নয়, গোটা দেশেই ধর্মনিরপেক্ষতার প্রতি দৃঢ় আনুগত্যকে প্রতীক হিসাবে চিহ্নিত করেছিলেন। সমস্ত অংশের সংখ‌্যালঘু মানুষ নিজেদের সুরক্ষিত এবং সাম্প্রদায়িক আক্রমণ থেকে মুক্ত জীবন উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন। ইন্দিরা গান্ধী নিহত হওয়ার পর পশ্চিমবঙ্গে সংখ‌্যালঘু শিখদের ওপর যে কোনো ধরণের আক্রমণ প্রতিহত করতে তিনি যে দৃঢ় অবস্থান নিয়েছিলেন তা সারা দেশে প্রশংসিত হয়েছিল।

সত্তরের দশকে পশ্চিমবঙ্গে আধা-ফ‌্যাসিবাদী সন্ত্রাস নামিয়ে আনা হয়েছিল। ১২০০-র বেশি কমরেড এই সময়ে খুন হন এবং আরো কয়েক হাজার কমরেডকে বলপূর্বক ঘর ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছিল। কমিউনিস্ট আন্দোলন বিভিন্ন সময়ে শাসকশ্রেণীর দমন-নিপীড়নের মোকাবিলা করেছে। কতটা সাফল্যের সঙ্গে এই নিপীড়ন ও হিংসাকে মোকাবিলা করা হচ্ছে, তার ওপর আন্দোলনের ভবিষ্যৎ নির্ধারিত হয়। জ্যোতি বসু ও প্রমোদ দাশগুপ্তের নেতৃত্বে পার্টি এই তীব্র আক্রমণকে প্রতিরোধ করেছিল এবং কখনো মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়নি। আজকে পশ্চিমবঙ্গে পার্টি ও বামফ্রন্ট যখন আবার ভয়াবহ আক্রমণের মুখে, তখন এই সন্ধিক্ষণে জ্যোতি বসুর পরিণত নেতৃত্বের উদাহরণ আমাদের সামনে পথের দিশা হওয়া উচিত।

দীর্ঘ সাত দশক ধরে, একজন কমিউনিস্ট হিসাবে জ্যোতি বসু আন্তর্জাতিক কমিউনিস্ট আন্দোলনের নানা ওঠাপড়াকে প্রত‌্যক্ষ করেছেন। কিন্তু মার্কসবাদের প্রতি তাঁর প্রত্যয় কখনো দোদুল্যমান হয়নি। জীবনের শেষদিন পর্যন্ত তিনি বিশ্বাস করতেন যে সমাজতন্ত্রই মানব সভ‌্যতার সামনে একমাত্র বিকল্প।

ভারতের কমিউনিস্ট আন্দোলনে প্রয়োগ ও বিকাশের বেশ কয়েকটি দৃষ্টিভঙ্গিগত প্রশ্নে জ্যোতি বসু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিলেন। যেমন, কিভাবে কমিউনিস্টরা আইনসভায় কাজ করবেন; ভূমি সংস্কার কর্মসূচীর রূপায়ণে; পঞ্চায়েতী রাজ ব্যবস্থার মাধ্যমে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের ক্ষেত্রে; ধর্মনিরপেক্ষতা ও গণতন্ত্রকে রক্ষা করার প্রশ্নে কমিউনিস্টদের দৃষ্টিভঙ্গি কী হবে। শ্রমজীবী মানুষের অধিকার রক্ষায়, গণতন্ত্রকে সুপ্রতিষ্ঠিত করা এবং ধর্মনিরপেক্ষতার নীতিকে শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে জ্যোতি বসু যে অবদান রেখেছেন, স্বাধীন ভারতের খুব কম নেতাই সে দাবি করতে পারেন।

গোটা বছর ধরে জন্মশতবর্ষ উদ্‌যাপন করতে গিয়ে তাঁর এই গৌরবময় জীবন ও কর্মধারারই স্মৃতিচারণা করা উচিত।

গণশক্তি, ৭ই জুলাই, ২০১৩

Advertisements
Published in: on জুলাই 10, 2013 at 7:59 অপরাহ্ন  মন্তব্য করুন  

The URI to TrackBack this entry is: https://jyotibasu.wordpress.com/2013/07/10/%e0%a6%8f%e0%a6%95%e0%a6%9f%e0%a6%bf-%e0%a6%97%e0%a7%8c%e0%a6%b0%e0%a6%ac%e0%a6%ae%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%93-%e0%a6%85%e0%a6%a8%e0%a7%81%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a6%a3%e0%a7%80%e0%a6%af%e0%a6%bc/trackback/

RSS feed for comments on this post.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: