সংসদীয় গণতন্ত্র : অদ্বিতীয় জ্যোতি বসু

বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য 

জ্যোতি বসুর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবন কোনো স্বল্প পরিসরে আলোচনা করতে যাওয়া সম্ভব না। চল্লিশের দশক থেকে তিনি রাজনীতি শুরু করেছেন এবং তাঁর জীবনের শেষদিন পর্যন্ত তিনি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তাঁর সঙ্গে কাজ করতে পারা, তাঁর পাশে থেকে কাজ শেখা আমার জীবনের এক দুর্লভ অভিজ্ঞতা। এই প্রবন্ধে আমি মূলত সংসদীয় গণতন্ত্রে তাঁর অবদান সম্পর্কে সংক্ষেপে কয়েকটি কথা বলব।

তিনি বিধানসভার সদস্য হয়ে এসেছিলেন প্রথম ১৯৪৬ সালে। পরাধীন দেশে যুক্ত বাংলার বিধানসভায় তিনি রেলওয়ে শ্রমিক কনস্টিটিউয়েন্সির প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। সেই ১৯৪৬ সাল থেকে বিধানসভা তাঁর কণ্ঠস্বর শুনেছে। তখন বাংলাদেশে গ্রামে-গ্রামে চলছে তেভাগা আন্দোলন। তেভাগা সম্পর্কে বিধানসভায় বক্তৃতার মধ্য দিয়ে তিনি সারা দেশের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন — কিভাবে বাংলার গ্রামে-গ্রামে কৃষকদের ন্যায়সঙ্গত সংগ্রাম চলেছে, তাদের ফসলের ভাগের জন্য এবং তৎকালীন সরকার কিভাবে সেই কৃষকদের আন্দোলনকে দমন করার জন্য পুলিস এবং মিলিটারি ব্যবহার করছে। পরবর্তীতে স্বাধীনতার পরেও তিনি এ‍‌ই সভায় রাজ্যের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক পরিস্থিতি নিয়ে বিরোধী নেতা হিসাবে কঠিন দায়িত্ব পালন করে গেছেন। ১৯৫২ সালে তিনি বরানগর বিধানসভা থেকে নির্বাচিত হয়ে পরে এই সভায় আসেন এবং আবার বিরোধী দলের নেতা হন। স্বাধীনতার পরবর্তীতে আমাদের রাজ্যে উদ্বাস্তু আন্দোলন, খাদ্য আন্দোলন, শিক্ষা আন্দোলন — বহুমুখী আন্দোলনে তাঁর অনবদ্য ভূমিকা ছিল বিধানসভার ভিতরে এবং বিধানসভার বাইরেও। তিনি এই সমস্ত আন্দোলনকে সংগঠিত করতে প্রথম সারির নেতা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বিরোধী দলের যে ভূমিকা আছে সংসদীয় গণতন্ত্রে তা তিনি তাঁর জীবন দিয়ে, তাঁর কর্মপন্থা দিয়ে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বিরোধী দলের নেতা হিসাবে তিনি সফলভাবে সেই দায়িত্ব পালন করেছেন।

পরবর্তীকালে আমরা তাঁকে দেখেছি তাকে দু’টি স্বল্পকালীন যুক্তফ্রন্ট সরকারের — (একটা ৯ মাস, একটা ১৩ মাস), উপমুখ্যমন্ত্রী হিসাবে। পরবর্তীতে বাম সরকার আসার পরে তিনি হলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং একটানা ২৩ বছর তিনি সাফল্যের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে গেছেন। সংসদীয় রাজনীতির তাঁর কয়েকটি মূল সাফল্য উল্লেখ করতে চাই। সমস্ত কর্মপন্থার মধ্য দিয়ে তিনি রাজ্যের, দেশের সংসদীয় গণতন্ত্রকে সংহত করা, উন্নত করার চেষ্টা সর্বতোভাবে চালিয়ে গেছেন। তিনি আন্তরিকভাবে গণতন্ত্রকে বিশ্বাস করতেন। তাঁর নিজের জীবনে যদিও তিনি বিনাবিচারে জেল খেটেছেন কিন্তু তিনি কখনও অন্যকে বিনাবিচারে জেল খাটাননি — এটাই ছিল তাঁর বৈশিষ্ট্য। তিনি কোনো কালা আইন হাতে নেননি। তিনি সংবাদপত্রের স্বাধীনতার উপর হস্তক্ষেপ করেননি। তিনি আন্তরিকভাবে প্রচার মাধ্যমের স্বাধীনতা‌‌য় বিশ্বাস করতেন। গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, গণতান্ত্রিক অধিকারগুলি, ব্যক্তি স্বাধীনতা, ট্রেড ইউনিয়নের স্বাধীনতা, সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকে তিনি আন্তরিকভাবে বিশ্বাস করেছেন এবং সেটি প্রমাণ করেছেন। আমরা এটাও ভুলতে পারি না পশ্চিমবাংলা এমন একটা রাজ্য, যেখানে তাঁর নেতৃত্বে সারা দেশের মধ্যে প্রথম হিউম্যান রাইটস কমিশন গঠিত হয়। জাতীয় কমিশন তৈরি হওয়ার পর আমাদের রাজ্যে পশ্চিমবাংলায় সারা দেশের মধ্যে প্রথম। এই কমিশন প্রতিষ্ঠিত হয় তাঁর নেতৃত্বে। কারণ তিনি আন্তরিকভাবে যা বিশ্বাস করতেন, সেই কাজ তিনি হাতে-কলমে প্রতিষ্ঠিত করে গিয়েছেন। সারা জীবন ধরে তিনি সংসদীয় গণতন্ত্রকে এইভাবেই প্রস্ফুটিত করার চেষ্টা করেছেন।

তাঁর আর একটি দিক সম্পর্কে উল্লেখ করতেই হয় তাঁর জীবন চিন্তায়, তাঁর কর্মধারায়, তাঁর রাজনীতিতে তিনি সর্বাঙ্গীণভাবেই ছিলেন ধর্মনিরপেক্ষ। কোনো অবস্থাতেই কোনো ধার্মিক সাম্প্রদায়িক চিন্তা তাঁকে গ্রাস করতে পারেনি, স্পর্শ করতে পারেনি। তিনি বড় বড় দু’টি ঘটনায় তার প্রমাণ রেখেছেন এই রাজ্যে। শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীর মৃত্যুর পর সারা দেশে দুর্ভাগ্যজনকভাবে হলেও শিখ সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে একটা সাম্প্রদায়িক হাঙ্গামা ছড়িয়ে পড়েছিল। আমাদের রাজ্যে সেই আগুনের উত্তেজনার আঁচ আমরা পেয়েছিলাম কিন্তু এই রাজ্যে কোনো অশান্তি হয়নি। তাঁর নেতৃত্বে আমাদের রাজ্য সেই অবস্থাটা পেরিয়ে আসতে পেরেছিল। ঠিক একইভাবে যখন বাবরি মসজিদ ধ্বংস হয় তখন সারা দেশে অনেক কাণ্ড হয়েছে, অবাঞ্ছিত কাণ্ড। আমাদের রাজ্যে সেই আগুনের হলকা এসেছে, কিন্তু শান্তির পরিবেশ রাখতে মূলত সক্ষম হয়েছে। নিশ্চয়ই এতে আমাদের রাজ্যের মানুষের কৃতিত্ব আছে। কিন্তু সবার উপরে ছিলেন জ্যোতি বসু, একজন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি সেই দায়িত্ব পালন করতে পেরেছিলেন বলে আমাদের রাজ্যে অশান্তি নেমে আসেনি। আজকে সারা দেশের মানুষ জানেন পশ্চিমবাংলায় ধর্মনিরপেক্ষতা সুরক্ষিত। পশ্চিমবাংলায় সাম্প্রদায়িক শক্তির জায়গা নেই। তিনি এই ঐতিহ্যকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে পেরেছিলেন।

সংসদীয় রাজনীতিতে তাঁর বিশেষ ভূমিকা রাজনৈতিক নেতা হিসেবে কি? শ্রমিক আন্দোলন এবং কৃষক আন্দোলনকে তিনি রাজনৈতিক আন্দোলনের মঞ্চের মধ্যস্থলে দাঁড় করিয়েছিলেন। এই দুই শ্রেণী আমাদের দেশে বৈপ্লবিক শক্তি। তাদের চিন্তা, তাদের মুক্তি সেই রাজনীতিকেই তিনি সারা জীবন বিশ্বাস করেছিলেন। তাঁর মুখে শোনা তাঁর ভাষায় একটা ঘটনা এখনও মনে পড়ে জলপাইগুড়ি থেকে আসাম যাচ্ছিলাম ট্রেনে, গোটা ট্রেন অন্ধকার। কারণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলছে, জাপানিজরা বোমা ফেলতে পারে। অন্ধকারের মধ্যে দিয়ে চলেছি জলপাইগুড়ি থেকে আসামে শ্রমিকদের মিটিং করার জন্য, অন্ধকার রাতে এই বিপদের মধ্যে যেতেই হবে। বিশ্বাস করেছি শ্রমিক‍‌শ্রেণীর মুক্তি। সেই কাজ করে গেছি, কেউ বাধা দিতে পারেনি। শ্রমিকদের এবং কৃষকদের তিনি রাজনৈতিক আন্দোলনের মাঝখানে দাঁড় করিয়েছিলেন।

(বিধানসভায় ১০ই মার্চ ২০১০ তারিখের বক্তৃতাকে ভিত্তি করে লিখিত) 

গণশক্তি, ৭ই জুলাই, ২০১৩ 

ইতিহাস গড়েছেন পশ্চিমবাংলার মানুষ

(নিরুপম সেন-এর লেখা ‘বিকল্পের সন্ধানে’ বইয়ের ভূমিকা)

পশ্চিমবঙ্গে বামফ্রণ্ট সরকার তিরিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে বারবার এরাজ্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের রায়ে নির্বাচিত হয়ে আসছে। শুধু ভারতেই নয়, সারা পৃথিবীর সংসদীয় গণতন্ত্রের ইতিহাসেও এটা একটা নজিরবিহীন ঘটনা। এজন্য কৃতিত্ব প্রাপ্য এরাজ্যের সচেতন, সংগ্রামী মানুষের।

আমরা যে কখনও সরকার গঠন করতে পারবো, আর সেই সরকার যে এতদিন টিঁকবে, তা আগে কখনো ভাবতেও পারিনি। ১৯৫৭ সালে কেরালায় যখন প্রথম কমিউনিস্ট সরকার গঠিত হলো, তখনও আমাদের সামনে অতটা পরিষ্কার ধারণা ছিল না যে এই পূঁজিবাদী সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যে একটি অঙ্গরাজ্যে কমিউনিস্টরা সরকার গঠন করলে কী করা সম্ভব, কতখানি করা সম্ভব। সেসব আমরা পরে ভেবেছি। ১৯৬৪ সালে সি পি আই (এম) যখন গঠিত হলো, তখন পার্টি কর্মসূচীতে আমরা বললাম, এরকম সরকারে গেলে সমাজব্যবস্থার খুব বড় কিছু অদল-বদল হয়তো আমরা করতে পারবো না। কিন্তু এই সংবিধানে যে অধিকার দেওয়া আছে, তাকে কাজে লাগাতে হবে। মানুষের স্বার্থে এই সুযোগের পূর্ণ সদ্ব্যবহার আমাদের করতে হবে। মানুষকে কিছু রিলিফ আমরা নিশ্চয়ই দিতে পারবো এইসব সরকারকে ব্যবহার করে। পার্টি কর্মসূচী সময়োপযোগী করা হলে আমরা বলেছি, সাংবিধানিক সীমাবদ্ধতার মধ্যে এই সরকারগুলি বিকল্প নীতি তুলে ধরবে ও প্রয়োগ করার চেষ্টা করবে।

অবশ্য পশ্চিমবঙ্গে রিলিফের থেকে বেশি কিছুই আমরা মানুষকে দিতে পেরেছি। এটা ঠিকই, আমাদের লক্ষ্য হলো শ্রেণীহীন, শোষনহীন সমাজব্যবস্থা গড়ে তোলা। কিন্তু সেকাজ এখনও অনেক বাকি। তাই এখনকার যা কাজ, তা এখনই করতে হবে।  আজ এটা প্রতিষ্ঠিত, এই সাংবিধানিক সীমাবদ্ধতার মধ্যেও পশ্চিমবঙ্গে বামফ্রন্ট সরকার মানুষের স্বার্থে অনেক কাজ করতে পেরেছে। আমরা যে এতদিন সরকারে রয়েছি, তা মানুষের ইতিবাচক রায়েই রয়েছি। পাশাপাশি, বামফ্রন্ট সরকার গোটা দেশের সামনে মানুষের স্বার্থে বিকল্প কর্মসূচীর একটা নজির তুলে ধরতে পেরেছে। জাতীয় রাজনীতিতে বিভিন্নভাবে আমাদের সাফল্যের ছাপ পড়েছে।     

 দেশ এখন জোট রাজনীতির যুগে প্রবেশ করেছে। পশ্চিমবঙ্গে একটানা ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলা ৯ দলের একটি দৃঢ় জোট হিসাবে বামফ্রন্ট সরকারের প্রভাব এক্ষেত্রে অস্বীকার করা যায় না। কারণ জোট সরকার মানেই যখন অস্থিতিশীল, বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি বলে প্রমাণ হচ্ছিলো, তখন এরাজ্যে এই জোট স্থিতিশীল, শান্তির পরিবেশ এবং জনমুখী উন্নয়নের নজির তৈরি করে গোটা দেশের সামনে একটি উজ্জ্বল ব্যাতিক্রম তুলে ধরেছে। শুধু জোট রাজনীতির প্রশ্নই নয়, কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্ক পুনর্বিন্যাসের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টিকেও সামনে তুলে এনেছিল বামফ্রন্ট সরকারই। আর্থিক ও প্রশাসনিক ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ এবং তৃণমূলস্তরে অংশগ্রহণমূলক গণতন্ত্রের বিকাশ ঘটানোর ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গ গোটা দেশের সামনে মডেল হিসাবে স্বীকৃত। একথা আজ সকলেরই জানা যে এরাজ্যের ত্রিস্তর পঞ্চায়েতী ব্যবস্থাকে অনুকরণ করেই গোটা দেশে তা রূপায়ণের জন্য আইন তৈরি করা হয়েছে। ভূমি সংস্কার, কৃষি ও গ্রামোন্নয়নের ক্ষেত্রেও এই সরকারের সাফল্য সর্বজনস্বীকৃত। পাশাপাশি, গণতান্ত্রিক পরিবেশ, শান্তি-সুস্থিতি, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নিরবচ্ছিন্নভাবে বজায় ক্ষেত্রেও দেশের সামনে এরাজ্য উদাহরণ ।

শিল্পবিকাশের প্রশ্নেও আমরা বিকল্প দৃষ্টিভঙ্গি নিয়েই কাজ করছি । স্বাধীনতার পর দীর্ঘ সময় ধরে পশ্চিমবঙ্গ আর্থিক ও অন্যান্য ক্ষেত্রে কেন্দ্রের চরম বঞ্চনা ও বৈষম্যের শিকার হয়েছে । ১৯৭৭ সালে বামফ্রন্ট সরকার তৈরি হওয়ার পরে কেন্দ্রের এইসব বাধা অতিক্রম করেই আমরা শিল্পস্হাপনের নীতি নিই। নয়ের দশকের গোড়ায় যখন মাসুল সমীকরণ নীতি ও লাইসেন্স প্রথা তুলে নেওয়া হলো, তখন আমাদের সামনে আরও সুযোগ এলো। আমরা যখন বণিকসভাগুলিতে গিয়ে এরাজ্যে বিনিয়োগের আবেদন জানাচ্ছিলাম, তখন তারা আমাদের বললেন, আপনারা যে নীতির ভিত্তিতে এখানে শিল্প গড়ার কথা বলছেন, সেটা লিখিতভাবে দিলে সুবিধা হয় । তখন ১৯৯৪ সালে আমরা বিধানসভায় বর্তমান শিল্পনীতি ঘোষণা করি। পরে ১৯৯৫ সালে চন্ডীগড়ে অনুষ্ঠিত আমাদের পার্টির পঞ্চদশ কংগ্রেসেও এটা অনুমোদিত হয়েছে।

শিল্পনীতিতে সুস্পষ্টভাবেই আমরা বলেছিলাম, প্রয়োজনে বিদেশী বিনিয়োগও আমাদের নিতে হবে। কিন্তু তা অবশ্যই হবে পারস্পরিক উপযোগিতার ভিত্তিতে। গত পার্টি কংগ্রেসেও আমরা বলেছি, সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ(এফ ডি আই) নিতে হবে উন্নততর প্রযুক্তি, বাড়তি উৎপাদনশীলতা এবং অতিরিক্ত কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে, এমন ক্ষেত্রেই। সপ্তম বামফ্রন্ট সরকার গঠিত হওয়ার পর এই নীতির ভিত্তিতেই কৃষির সাফল্যকে সংহত করে ব্যাপকভাবে শিল্পায়নের কর্মসূচী নিয়েছে। বামফ্রন্টের নির্বাচনী ইশ্‌তেহারেই একথা আমরা বলেছিলাম। অথচ, এখন এ নিয়ে বিতর্ক তুলছে বিরোধীরা। কিন্তু রাজ্যের উন্নয়নের স্বার্থে, বেকার ছেলে-মেয়েদের কাজের সুযোগ বাড়ানোর জন্যই একাজ আমাদের করতে হবে। আমাদের ভালো কাজে বিরোধীরা সমর্থন করবে না কেন। শিল্প  আমাদের করতে হবেই। পাশাপাশি, শিল্পের উন্নয়নের সঙ্গে আমাদের রাজ্যে কৃষিক্ষেত্রেও অনেক উন্নতির সুযোগ রয়েছে। কৃষিতে উন্নততর প্রযুক্তির প্রয়োগ, অকৃষি জমিকে চাষযোগ্য করা, একফসলী জমিকে বহুফসলী করা, উচ্চ ফলনশীল বীজের ব্যবহার বাড়ানো, ফসলের বৈচিত্র্যকরণ প্রভৃতি কাজ আমাদের করতে হবে।

পশ্চিমবঙ্গের সাথে কেরালা এবং ত্রিপুরাতেও আমাদের পার্টির নেতৃত্বে পরিচালিত সরকারগুলি বিকল্প দিশা দেখাতে সক্ষম হয়েছে।  প্রতিটি ক্ষেত্রেই সরকারের মূল কর্মসূচীগুলি আমাদের পার্টিতে, পার্টি কংগ্রেসে অথবা পার্টি পলিট ব্যুরোতে অনুমোদন করেই আমরা রূপায়ণ করেছি। কিন্তু আমার কথা হলো, পার্টি সংগঠনের ক্ষেত্রে আমাদের এই সাফল্যের প্রতিফলন গোটা দেশে যেভাবে হওয়া উচিত ছিল, তা হয়নি। সি পি আই (এম)-র অষ্টাদশ কংগ্রেসে এবিষয়ে আমরা আলোচনা করেছি এবং নিজস্ব উদ্যোগের পাশাপাশি অন্যান্য বামপন্থী ও গণতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ দলগুলির সঙ্গে, অন্যদিকে ট্রেড ইউনিয়ন ও গণসংগঠনগুলি মিলে এই সময়ে ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তোলা হয়েছে। আগামী মার্চ মাসে পার্টির উনিশতম কংগ্রেসে আমরা তার পর্যালোচনা করবো। 

 কমরেড নিরুপম সেন এরাজ্যে বামফ্রন্ট সরকার যে জনমুখী বিকল্প অভিমুখ নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে, এই পুস্তকে বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে তার তাত্ত্বিক ও বস্তুনিষ্ঠ বিশ্লেষণ করেছেন। এরকম একটি বই খুবই জরুরী ছিল। পার্টির নেতা-কর্মীরা তো বটেই, বামফ্রন্ট সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে যারা জানতে চান, তারাও এরফলে উপকৃত হবেন। ইংরাজিতে অথবা অন্যান্য ভাষাতেও এবিষয়ে বই প্রকাশ করা প্রয়োজন, যাতে দেশের এবং বিদেশের মানুষও জানতে পারেন কিভাবে আমরা এই নজির গড়ে তুলতে পারলাম, জনগণের এই দূর্গ অব্যাহত রাখতে পারলাম। বইটির ব্যাপক প্রচার হবে, আশা রাখছি।             

 জ্যোতি বসু

২৫শে ডিসেম্বর, ২০০৭                                                                              

Published in: on জুন 30, 2010 at 4:29 অপরাহ্ন  মন্তব্য করুন  

ইতিহাসের মহানায়ক কমরেড জ্যোতি বসুঃ হায়দার আকবর খান রনো

জানুয়ারি ১৮, ২০১০

ভারতের মার্কসবাদী কমিউনিস্ট পার্টির নেতা জীবন্ত কিংবদন্তী কমরেড জ্যোতি বসুর জীবনাবসানের খবর পেয়ে আমার মনে হলো এক উজ্জ্বল নক্ষত্রের পতন ঘটেছে। যে নক্ষত্রটি কয়েক দশক ধরে জ্বলজ্বল করে জ্বলছিল তা আর আলো দেবে না। সত্যি কি তাই! কথাটা বোধহয় আংশিক সত্য। যে আলো তিনি জ্বালিয়ে গেছেন তা বহুদিন পর্যন্ত ভারতের কমিউনিস্ট আন্দোলনই শুধু নয়, গণতান্ত্রিক ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী আন্দোলনকেও পথ দেখাবে। তবু এই মৃত্যু বড়ই বেদনাদায়ক। বাংলাদেশ হারালো এক অকৃত্রিম বন্ধুকে আর ভারতবাসী হারালো তাদের প্রিয় নেতাকে।

এক শিক্ষিত উচ্চবিত্ত পরিবারে তাঁর জন্ম। তিনি লেখাপড়া করেছেন কলকাতার অভিজাত স্কুল ও কলেজে। ইংরেজী সাহিত্যে অনার্স নিয়ে বিএ পাশ করেছেন প্রেসিডেন্সী কলেজ থেকে। তখনো তিনি মার্কসবাদের সংস্পর্শে আসেননি। তাঁর পরিবারের মধ্যে স্বদেশী ও বৃটিশ বিরোধী চেতনাবোধ ছিল, যা স্বাভাবিক কারণেই বালক ও তরুণ জ্যোতি বসুর মধ্যে সঞ্চায়িত হয়েছিল। তাঁর পিতার সঙ্গে দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাসের ঘনিষ্ট সম্পর্ক ছিল। সশস্ত্র জাতীয়তাবাদী অনুশীলন সমিতির সদস্যদের সঙ্গে তাঁর পৈত্রিক পরিবারের যোগাযোগ ছিল। একবার কোলকাতায় সুভাষ চন্দ্র বসুর সভায় গিয়ে তিনি পুলিশের লাঠি চার্জে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছিলেন।

কোলকাতার পড়াশোনা শেষে তিনি লন্ডন গিয়েছিলেন ব্যরিস্টারি পড়তে। বিলাত থেকে ব্যরিস্টার হয়ে তিনি দেশে ফিরে আসলেন, কিন্তু ব্যরিস্টারী করলেন না। তিনি হলেন কমিউনিস্ট পার্টির সার্বক্ষনিক কর্মী। বিলাতে থাকাকালীন তিনি ব্যরিস্টারী পাশ করার পাশাপাশি আরেকটি অনেক বড় অর্জন করেছিলেন। তা হলো মার্কসবাদে দীক্ষাগ্রহণ। গ্রেট বৃটেনের কমিউনিস্ট পার্টির হ্যারি পাল্টি, রজনীপাম দত্ত, বেন ব্রেডলি প্রমুখ তাঁকে সাহায্য করেছিলেন মার্কসবাদে শিক্ষিত করে তুলতে। উচ্চবিত্ত ঘরের সন্তান ব্যরিস্টার জ্যোতি বসু দেশে ফিরে আসলেন কমিউনিস্ট হয়ে। কমরেড মোজাফফর আহমদ তাঁকে কমিউনিস্ট হিসাবে কাজ করার পথ দেখালেন। প্রথমে তিনি শ্রমিক আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হন। রেলওয়ে শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নে কাজ শুরু করেন। জ্যোতি বসুর আত্মজীবনীমূলক “জনগণের সঙ্গে” গ্রন্থটির প্রথম খন্ডের ভূমিকায় আরেক কমিউনিস্ট নেতা প্রয়াত কমরেড সরোজ মুখার্জি লিখেছিলেন।

“তাঁর (জ্যোতি বসুর) লেখাগুলির মধ্য দিয়ে বিশেষভাবে স্বচ্ছ হয়ে ফুটেছে, কীভাবে একজন ব্যারিস্টার ব্যক্তিগত জীবনে স্বাচ্ছন্দের কথা উপেক্ষা করে কমিউনিস্ট পার্টির কর্মতৎপরতার সঙ্গে নিজেকে মিশিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছিলেন। মার্কসবাদের জ্ঞান ও আদর্শের প্রতি নিষ্ঠা কত গভীর হলে একজন মধ্যবিত্ত ঘরের যুবক বাড়ি-ঘর-সংসার সম্পর্কে নিষ্পৃহ থেকে সব সময়ের জন্য কমিউনিস্ট কর্মী হিসাবে কাজ করতে পারেন তা জ্যোতি বসুর কর্মজীবনের কাহিনীর মধ্যে পরিস্ফুট। পার্টির নির্দেশ পালন করে কীভাবে ধীরে ধীরে নিজেকে শ্রমিক নেতা হিসাবে এবং পরবর্তী যুগে একজন জননেতা হিসাবে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন তা-ও তার লেখার মধ্যে পরিস্ফুট হয়েছে।”

কমিউনিস্ট হয়ে যাওয়া ব্যরিস্টার জ্যোতি বসু ট্রামে বাসে রাস্তায় পার্টির পত্রিকা বিক্রি করেছেন, রেলওয়ে শ্রমিকদের সংগঠিত করতে নানা জায়গায় ঘুরেছেন, শ্রমিক বস্তিতে থেকেছেন। এইভাবে তিনি নিজেকে শ্রেণীচ্যুত করেছিলেন। কমরেড জ্যোতিবসুর রাজনৈতিক জীবনকে কয়েকটি পর্বে ভাগ করা যায়। প্রথম পর্বে বৃটিশ আমলে শ্রমিক আন্দোলন। দ্বিতীয় পর্বে সংসদীয় রাজনীতিতে বিরোধী দলের ভূমিকা পালন। এই পার্টি শুরু হয়েছিল ১৯৪৬ সাল থেকে। সংসদীয় সংগ্রামের পাশাপাশি তিনি রাস্তায় সংগ্রামও করেছেন। বিশেষ করে পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে কংগ্রেস সরকার বিরোধী গণ আন্দোলনে তিনি নেতৃত্ব প্রদান করেছিলেন। এই সময় খাদ্য আন্দোলন খুবই ব্যাপক ও জঙ্গী রূপ নিয়েছিল যার পুরোভাগে যারা ছিলেন তাদের অন্যতম কমরেড জ্যোতি বসু। তৃতীয় পর্বটি হচ্ছে পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে একটি রাজ্য পরিচালনা করা। টানা ২৪ বছর ধরে বার বার নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। পরে বার্ধক্যের কারণে মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বটি তুলে দেন তারই দলের কমরেড বুদ্ধদেব ভট্টচার্য্যেের হাতে।

১৯৪৬ সালে রেলওয়ে শ্রমিক কর্মচারীদের জন্য নির্দিষ্ট নির্বাচনী এলাকা থেকে তিনি বঙ্গীয় প্রাদেশিক পরিষদে নির্বাচিত হয়েছিলেন। তাঁর এই বিজয়টি তখন বিস্ময়ের সৃষ্টি করেছিল। কারণ তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন কংগ্রেসের নেতা হুমায়ুন কবীর যার তখন ছিল ব্যাপক নাম ডাক। সেই তুলনায় জ্যোতি বসু তখনো স্বল্প পরিচিত। কমিউনিস্ট পার্টির কাজ ও জ্যোতি বসুর নিজস্ব গুণাবলীর কারণেই তিনি বিজয়ী হতে পেরেছিলেন। সেই নির্বাচনে বঙ্গীয় পরিষদে (তখন বাংলা বিভক্ত হয়নি, দুই বাংলা মিলে বৃটিশ ভারতে একটি প্রদেশ হিসাবে ছিল) আর দুইজন কমিউনিস্ট পার্টি থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেনÑ দার্জিলিং-এর চা শ্রমিক নেতা রতনলাল ব্রাক্ষণ এবং দিনাজপুরের কৃষক নেতা রূপ নারায়ণ রায়। বঙ্গীয় পরিষদে মাত্র তিনজন সদস্য নিয়ে ছিল কমিউনিস্টদের এক এই ছোট গ্র“প যার নেতা ছিলেন জ্যোতিবসু। রেলশ্রমিক নেতা জ্যোতিবসু এই ছোট গ্র“প নিয়েও সংসদীয় রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন। মনে রাখতে হবে যে, কমিনউনিস্টরা হলেন সর্বহারা বিপ্লবী। কিন্তু ভবিষ্যতের বিপ্লবের স্বার্থে প্রয়োজনে সংসদীয় সংগ্রামকেও যোগ্যতার সঙ্গে ব্যবহার করা হচ্ছে লেখিনীয় কৌশলের অন্যতম নীতি। জ্যোতি বসু সংসদীয় রাজনীতির মোহে আচ্ছন্ন হয়ে পড়েননি। সুখ সুবিধা ইত্যাদি তাঁকে গ্রাস করতে পারেনি। বরং শাসক শ্রেণীর চরিত্র উম্মোচিত করা এবং মেহনতী জনগণের স্বার্থের কথা তুলে ধরার কাজটি তিনি যোগ্যতার সঙ্গে করতে পেরেছিলেন। স্বাধীনতা পরবর্তী যুগে প্রথম দিকে ভারতে কমিউনিস্ট পার্টি বেআইনী ছিল এবং পার্টির উপর কংগ্রেসী সরকারের অত্যাচারও ছিল চরম। উপরন্ত গান্ধী, সুভাষ, নেহেরুর কংগ্রেস তখনো যথেষ্ট জনপ্রিয় ছিল। ১৯৫২ সালে স্বাধীন ভারতে প্রথম নির্বাচনে কমিউনিস্ট পার্টি বঙ্গীয় পরিষদে (বিধানসভা) তিনজনের গ্র“প থেকে প্রধান বিরোধী দলের মর্যাদা পেয়েছিল। তখনও জ্যোতি বসু প্রধান বিরোধদলীয় নেতা। পঞ্চাশের দশকে কমিউনিস্ট পার্টির নেতৃত্বে পশ্চিমবঙ্গে বড় রকমের কৃষক ও শ্রমিক আন্দোলন, শিক্ষক আন্দোলন, রিফিইজি সমস্যা নিয়ে আন্দোলন ও খাদ্য আন্দোলন হয়েছিল। জ্যোতি বসু বাইরের গণ আন্দোলনের সঙ্গে সংসদীয় আন্দোলনকে সমন্বিত করতে পেরেছিলেন অত্যন্ত যোগ্যতার সঙ্গে। এইভাবে তিনি শ্রমিক নেতা থেকে পার্লামেন্টেরিয়ান এবং কমিউনিস্ট পার্টির নেতা থেকে গণনেতায় পরিণত হন। সংসদীয় সংগ্রামে তার কি ধরণের যোগ্যতা ছিল সে সম্পর্কে কৃষ্ণ ধরের এক রচনা থেকে জানা যায়, “তিন সদস্য নিয়ে গঠিত কমিউনিস্ট গোষ্ঠীর নেতা হিসাবে তখনই তিনি আইনসভার মুসলিম লিগ, কংগ্রেস ও কৃষক প্রজা পার্টির দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন। স্পিকার ছিলেন সৈয়দ নওশের আলী। তিনিও জ্যোতিবসুর সংসদীয় রীতিনীতি সম্পর্কে জ্ঞান এবং পয়েন্ট অফ অর্ডার তুলে অত্যন্ত প্রশাসনিক বক্তব্য  সভায় পেশ করার দক্ষতার প্রশংসা করেন। ….. অত্যন্ত ছোট কমিউনিস্ট গোষ্ঠীর নেতা হিসাবে তরুণ ও স্বল্প পরিচিত জ্যোতি বসুর দক্ষতা ও সংসদে প্রশ্ন উত্থাপন করার ভঙ্গি ও ভাষা অল্প সময়ের মধ্যেই সভার ভিতরে ও বাইরে, সংবাদপত্র ও সর্বত্র আলোচনার বিষয় হয়ে ওঠে।”

১৯৬৪ সালে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টিতে বিভক্তি আসে। ভারতের বিপ্লবের রণনীতি, রাষ্ট্রের চরিত্র, কংগ্রেস দল ও সরকারের চরিত্র বিশ্লেষণ এবং আন্তর্জাতিক মহাবিতর্ক এতগুলি বিষয়ে গুরুতর মত পার্থক্যের কারণে পার্টি বিভক্ত হয়েছিল। ১৯৬৪ সালে নতুন করে যে মার্কসবাদী কমিউনিস্ট পার্টি গঠিত হয়েছিল জ্যোতি বসু প্রথম থেকেই ছিলেন তাঁর পলিব্যুরোর সদস্য। জ্যোতি বসুকে অনেকে গণ আন্দোলনের নেতা বা পার্লামেন্টেরিয়ান বা সফল মুখ্যমন্ত্রীরূপে দেখেন। এটা খন্ডিত দেখা। তিনি ছিলেন প্রধানতঃ ও মূলত কমিউনিস্ট বিপ্লবী। মতাদর্শের ক্ষেত্রে তাঁর অবস্থান ছিল খুবই স্বচ্ছ। মার্কসীয় মতাদর্শের মর্মবস্তুকে তিনি বুঝতেন এবং সার্থকভাবে প্রয়োগ করতে পারতেন। মার্কসবাদে তাঁর দখল ছিল আর সেই সঙ্গে ছিল প্রখর বাস্তব জ্ঞান। সবটা মিলিয়েই তিনি ছিলেন কমিউনিস্ট গণ নেতা, যাঁর জনপ্রিয়তা ছিল প্রায় আকাশ ছোঁয়া।

১৯৬২ চীন-ভারত সীমান্ত সংঘর্ষ হয়। তখন ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির যে অংশ তথাকথিত চীনপন্থী বলে পরিচিত ছিল তাদেরকে সরকার গ্রেপ্তার করেছিল। জ্যোতি বসুও গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। তখন সরকার চীনকে আক্রমনকারী বলে ঘোষণা দিয়ে সমাজতান্ত্রিক চীন বিরোধী প্রচার তুঙ্গে তুলেছিল। সেই সময় জ্যোতিবসু ও অন্যান্য কমিউনিস্টরা প্রকাশ্যে বলেছিলেন যে, এটা সরকারের মিথ্যা প্রচার এবং মার্কিন ষড়যন্ত্রের ফসল। তিনি বললেন, সমাজতান্ত্রিক দেশ আগ্রাসী হতে পারে না। ঐ রকম যুদ্ধ পরিস্থিতিতে নিজ দেশের উগ্র জাতীয়তাবাদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে সত্য কথা বলতে যে হিম্মত লাগে তা জ্যোতি বসুর ছিল। তখন চীন বিরোধীরা প্রচার দেশকে এমন ভাবে ভাসিয়ে নিয়ে গিয়েছিল যে,  মাকর্সবাদী কমিউনিস্ট পার্টি (জ্যোত্যি বসু যার অন্যতম নেতা) সাময়িকভাবে গণবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল। কিন্তু মাত্র কিছুদিনের জন্যই। আবার প্রবল গণ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সিপিআই (এম) পশ্চিমবঙ্গে বৃহত্তম রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছিল, যার ফল পাওয়া গেল ১৯৬৭ সালের নির্বাচনে।

জ্যোতি বসু সর্ম্পকে কিছু লিখতে হলে অবশ্যই ১৯৭১ সালে তাঁর এবং তাঁর পার্টির ভূমিকার কথা স্মরণ করতেই হবে। সেই সময় ১ ও ২ জুন কলকাতার বেলেঘাটার এক স্কুলে কয়েকটি বামসংগঠন এক সম্মেলনের মাধ্যমে গঠন করেছিল “ বাংলাদেশ জাতীয় মুক্তি সংগ্রাম সমন্বয় কমিটি।” এই সংগঠনটি বাংলাদেশের প্রবাসী সরকারকে মেনে নিয়েই দেশের অভ্যন্তরে স্বতন্ত্রভাবে যুদ্ধ করেছিল (ছোট বড় ১৪টি সশস্ত্র গেরিলা ঘাঁটি যাদের ছিল) এবং ভারতে অবস্থিত মুক্তিফৌজের ভেতরে থেকেও যুদ্ধ করেছিল। সিপিআই (এম) তাদের সংগৃহীত অর্থ দিয়ে সাহায্য করেছিল। প্রধানত সাহায্য করেছিল বামপন্থী মুক্তিযোদ্ধাদের। তখন বামপন্থীদের বিশেষ করে যারা চীনপন্থী বলে পরিচিত ছিলেন, তাদের ভারতে চলাফেরা বেশ অসুবিধাজনক ছিল। এক্ষেত্রে সিপিআই (এম) এবং তার নেতা জ্যোতি বসু বাংলাদেশের বামকর্মীদের নিরাপত্তা প্রদান ও অন্যান্য সহয়তা প্রদান করেছিলেন।

প্রসঙ্গক্রমে একটি ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার কথা বলি। ১৯৭১ সালের আগস্ট মাসে একবার আমাকে ভারতীয় সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার লোক আগরতলা থেকে ধরে নিয়ে শিলং এ নিয়ে যান। সেখানে ভারতের সামরিক বাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান জেনারেল সুব্রাহ্মনিয়াম আমাকে দুদিন ইন্টারোগেট করে পরে সসম্মানেই প্লেনে করে কলকাতায় পাঠিয়ে দেন। ঘটনাটি আমাকে বেশ বিচলিত করেছিল। কারণ কোন ধরনের গোয়েন্দা সংস্থার সংস্পর্শ আমার পছন্দীয় নয়। কোলকাতায় এসে বিষয়টি কমরেড প্রমোদ দাসগুপ্ত ও কমরেড জ্যোতি বসুর কাছে বিবৃত করলাম। আমার মানসিক অবস্থা থেকে জ্যোতি বসু একটু হেসে øেহসুলভ ভঙ্গিতে বললেন “বিপ্লব করতে হলে তো কত রকম সংস্পর্শে আসতে হবে। এতে ঘাবড়ানোর কি আছে।” তিনি বলেছিলেন যে, “আমরা বাংলাদেশের বামপন্থীদের একমাত্র অস্ত্র দেয়া ছাড়া সবরকম সাহায্য করবো। কারণ অস্ত্রের বিষয়টি কেন্দ্রীয় সরকারের।”

অবশ্য একথা মনে করার কোন কারণ নেই যে, জ্যোতি বসু সংকীর্ণতাবাদী ছিলেন। তিনি সর্বপ্রথমে চাইতেন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ সফল হোক। একই সঙ্গে অবশ্যই তিনি কামনা করতেন সঠিক লাইন গ্রহণের মধ্য দিয়ে এই যুদ্ধের মাধ্যমে কমিউনিস্টরা সামনে আসুক। এটাই তো স্বাভাবিক।

জ্যোতি বসু এক সময় সোভিয়েত লাইনকে সংশোধনবাদ বলে প্রত্যাখান করেছিলেন। পরবর্তীতে তিনি এবং তাঁর পার্টি চীনের অনেক বিষয়ে সমালোচনা করেছিলেন। চীনের পার্টির সংকীর্ণতা ও কতিপয় ভুল তত্ত্ব (যেমন ত্রি-বিশ্ব তত্ত্ব) তাঁরা কখনই গ্রহণ করেননি। অর্থাৎ অনুকরণ নয় বরং স্বাধীনভাবে মাকর্সবাদী তত্ত্বের ভিত্তিতে নীতি গ্রহণ করা ছিল তাঁর ও তাঁর দলের লাইন।

সত্তরের দশকে ইন্দিরা গান্ধী ইমার্জেন্সী জারি করলে ভারতের মার্কবাদী কমিউনিস্ট পার্টি দারুন আক্রমণের মুখে পড়ে। সেই সময় জ্যোতি বসু ও তাঁর পার্টি প্রকাশ্যে ও অপ্রকাশ্যে কাজের সমন্বয় করতে শিখিয়েছিলেন সমগ্র পার্টিকে। যারা জ্যোতি বসুকে একজন ভালো প্রশাসক এবং “বিপ্লব বিরোধী সংস্কারবাদী শান্তিপূর্ণ পথে সমাজতন্ত্রে বিশ্বাসী” বলে মনে করেন তারা পরিপূর্ণরূপে ভ্রান্ত। বস্তুতঃ জ্যোতিবসু আগাগোড়া বিপ্লবী এবং মাকর্সবাদের বিপ্লবী সত্ত্বায় আস্থাশীল নেতা ছিলেন।

১৯৭৭ সাল থেকে টানা ২৪ বছর জ্যোতিবসু পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। বারবার নির্বাচনে তাঁর দল বিজয়ী হয়েছিল। এমন ঘটনা পৃথিবীর ইতিহাসে আরেকটি আছে বলে আমার মনে হয় জানা নেই। প্রশাসক হিসাবে জ্যোতিবসু আসাধারণ দক্ষতার ও প্রখর বাস্তব বুদ্ধির পরিচয় দিয়েছেন। ২৪ বছর মুখ্যমন্ত্রীত্ব করার পর তিনি ঐ দায়িত্বটি তুলে দেন তাঁরই দলের কমরেড বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য্যরে হাতে। এই যে বিরাট সাফল্য তার পেছনে জ্যোতি বসুর ব্যক্তিগত যোগ্যতাও যেমন ছিল, তেমনি ছিল অত্যন্ত সুসংগঠিত, সুশৃঙ্খল ও আদর্শনিষ্ঠ পার্টির ভূমিকা। এই সময়কালে তিনি পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যের ক্ষেত্রে তিনি যা করছেন তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ভূমি সংস্কার, বর্গা অপারেশন, শিল্পায়ন এবং পঞ্চায়েত ব্যবস্থার মাধ্যমে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ। ফলে গরিব জনগণ কিছুটা ক্ষমতার স্বাদ পেয়েছিল। গরীব সীমিত আকারে হলেও গরীব জনগণের যে ক্ষমতায়নের কাজটি করতে পেরেছিলেন সেটাই ছিল তাঁর দলের এবং তাঁর ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তার মূল কারণ। আরও উল্লেখ্য যে পশ্চিমবঙ্গে অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় জাতপাত ও সা¤প্রদায়িকতার বিষয়টি খুবই কম ছিল।

জ্যোতি বসুর বাংলাদেশের প্রতি দুর্বলতা ছিল সবসময়। তিনি ছিলেন আসলেই বাংলাদেশের জনগণের অকৃত্রিম বন্ধু। ১৯৯৬ সালে তিনি ঢাকায় এসেছিলেন মূলত গঙ্গার পানি বন্টন বিষয়ে আলোচনা করতে, যদিও তিনি কেন্দ্রীয় সরকারে ছিলেন না। তখনি লক্ষ্য করা গেছে যে বাংলাদেশের স্বার্থরক্ষা করার ব্যাপারে তাঁর ছিল আন্তরিক প্রচেষ্টা। সম্ভবতঃ নাড়ির টানে তাঁর এই বিশেষ দুর্বলতা ছিল।

জ্যোতি বসু ব্যক্তি হিসাবে ছিলেন সন্দেহাতীতভাবে সৎ ও আর্দশনিষ্ঠ। তাঁর মধ্যে ছিল এক দরদী মন। মানুষ হিসাবে তিনি ছিলেন অতি উঁচু এবং কঠিন বিষয়কে সহজে ব্যাখ্যা করার অসাধারণ যোগ্যতা তাঁর ছিল। তাঁর মাঠের বক্তৃতাও আমি শুনেছি। আমাদের দেশে যে ধরনের জ্বালাময়ী বা আবেগপ্রবণ বক্তৃতা করার অথবা নাটকীয় ঢং এ বক্তৃতা করার প্রবণতা আছে অধিকাংশ রাজনীতিবিদদের মধ্যে, জ্যোতি বসুর বক্তৃতায় তা পাওয়া যাবে না। তাঁর বক্তৃতা শুনলে মনে হয় যেন তিনি লক্ষ লক্ষ মানুষের সঙ্গে সহজভাবে আলাপ করছেন। তবে তাঁর বক্তৃতায় এক ভিন্ন ধরনের সম্মোহনী ক্ষমতার পরিচয় পাওয়া যায়।

পাঠক নিশ্চয় জানেন যে, একবার জ্যোতি বসুর ভারতের প্রধানমন্ত্রী হবার কথা উঠেছিল। ভারতের লোকসভায় সিপিআই (এম) এর সদস্যসংখ্যা ছিল বেশ নগণ্য। তারপরও অধিকাংশ দল তাকেই প্রধানমন্ত্রী করতে চেয়েছিলেন। এটা খুব সাধারণ ব্যাপার নয়। অর্থাৎ সর্বভারতীয় পর্যায়েও তিনি ছিলেন জনগণের আস্থাভাজন নেতা। তাঁর পার্টি সিপিআই (এম) এই প্রস্তাবে রাজী হয়নি। তিনি পার্টি সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে এমন আপাত লোভনীয় প্রস্তাব প্রত্যাখান করেছিলেন। আমাদের দেশের ক্ষেত্রে এমনটা ভাবাই যায় না। আর এর থেকেই বোঝা যায় যে, জ্যোতি বসু ছিলেন আসলেই এক ব্যতিক্রমী নেতা।

৯৫ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন। এটা স্বাভাবিক বলেই মেনে নেয়া উচিত। তবু মন মানতে চায় না। মনে হয়, তাঁর আরও কিছুদিন বাঁচা উচিত ছিল। বাংলাদেশের স্বার্থে। ভারতের জনগণের স্বার্থে। সর্বোপরি ভারতবর্ষ ও উপমহাদেশের কমিউনিস্ট আন্দোলন বিকাশের স্বার্থে। যে আদর্শ তিনি রেখে গেছেন কাস্তে হাতুড়ি খচিত যে লাল পতাকা তিনি তুলে ধরেছিলেন, তাকে আরও উঁচুতে তুলে ধরে আমরা যেন তাঁকে যুগ যুগ বাঁচিয়ে রাখি।

হায়দার আকবর খান রনো বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা

%d bloggers like this: