অনন্য, দূরদৃষ্টির জননেতা

বিমান বসু 

কমরেড জ্যোতি বসুর বয়স হয়েছিল একথা সত্য। তথাপি জ্যোতি বসু আমাদের মধ্যে নেই একথা ভাবতে অসুবিধা হচ্ছে। জ্যোতি বসু আমাদের দেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনের প্রায় প্রথম যুগের নেতাদের মধ্যে অন্যতম। গত শতাব্দীর চল্লিশের দশকের মধ্যভাগ থেকে ২০০৯সাল পর্যন্ত প্রায় সাত দশক তিনি বাংলা তথা ভারতের কমিউনিস্ট আন্দোলন, গণতান্ত্রিক ও ধর্মনিরপেক্ষ আন্দোলন-সংগ্রামের এক অবিসংবাদী নেতা ছিলেন। 

ব্যক্তিগতভাবে আমি যখন ১৯৫৮সালে পার্টি সদস্যপদ পাই তখন যে ‘রেড কার্ড’ পেয়েছিলাম তাতে জ্যোতি বসুর স্বাক্ষর ছিল। কারণ তখন তিনি রাজ্য পার্টির সম্পাদক ছিলেন। পার্টির সদস্যপদ পাওয়ার আগে থেকেই জ্যোতি বসুর অনেক বক্তৃতা শুনেছি। অনেক সময় মনে হয়েছে জ্যোতিবাবু বক্তব্যের পুরো বাক্য শেষ না করেই অন্য বিষয়ে তাঁর বক্তব্য রাখছেন- কিন্তু তাতে তাঁর সামগ্রিক বক্তব্য বুঝতে কোন অসুবিধা হয়নি। জনগণের কাছে কোন বিষয় বোধগম্য করে পেশ করার তাঁর এক দুর্লভ গুণ ছিল। যা সকলের থাকে না। আবার প্রশাসক হিসাবে জ্যোতিবাবু খুবই দক্ষ ছিলেন। এই দক্ষতার প্রমাণ ১৯৬৭-র যুক্তফ্রন্ট ও ১৯৬৯–র যুক্তফ্রন্টের সময়ে আমরা সকলেই লক্ষ্য করেছি। তিনি বিরোধী দলের নেতা যতদিন ছিলেন তখনও দেখেছি জনগণের দাবি দাওয়ার বক্তব্যকে বলিষ্ঠভাবে নীতিসম্মত পদ্ধতিতে বিধানসভার অভ্যন্তরে ও বাইরে, সমাবেশের সামনে তীক্ষ্ণভাবেই পেশ করতেন। একজন রাজনৈতিক নেতা হিসাবে এই সব দুর্লভ গুণের অধিকারী হবার ফলে তিনি বামপন্থী দলসমূহ ও জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য নেতা হিসাবে গড়ে উঠেছিলেন। 

১৯৭৭সালে বামফ্রন্ট গড়ে তোলার কাজে কমরেড প্রমোদ দাশগুপ্তকে সঙ্গে নিয়ে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। আবার বামফ্রন্ট সরকার গড়ে ওঠার পর ১৯৭৭সালেই কমরেড প্রমোদ দাশগুপ্ত ও কমরেড জ্যোতি বসু যৌথ বিবৃতিতে অতীত দিনের কংগ্রেসের নেতৃত্বে গণ আন্দোলন ও কমিউনিস্টদের ওপর আক্রমণ, দমন- পীড়ন মূলক কার্যকলাপের কোন প্রতিশোধ নেওয়া কমিউনিস্টদের ও বামপন্থীদের কাম্য নয় বলে প্রকাশ্যে বলিষ্ঠভাবে আহ্বান জানিয়েছিলেন। আমাদের রাজ্যের জনগণের স্বার্থে এবং সামগ্রিক ভারতের অর্থনীতিকে পুষ্ট করতে তিনি বহু প্রস্তাব দিয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে ভূমি-সংস্কার করে, পঞ্চায়েতী রাজ ব্যবস্থা চালু করে ভূমিহীন কৃষকদের স্বার্থ রক্ষা করে এবং ভূস্বামীদের বিরুদ্ধে গ্রামীণ অর্থনীতিতে নতুন জোয়ার আনতে এক অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন। কেন্দ্র- রাজ্য সম্পর্ক পুনর্বিন্যাসের দাবিতে এবং সংবিধান প্রদত্ত যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাকে কার্যকরভাবে রূপায়ণের উদ্দেশ্যে সারা ভারতে জনমত গড়ে তোলার লক্ষ্যে কয়েকবার বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সভা করা ও তার পক্ষে সোচ্চার থেকেছেন।

রাজ্যে সল্টলেক ইলেকট্রনিক্স কমপ্লেক্স, বক্রেশ্বর তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প, হলদিয়ায় পেট্রো-রসায়ন শিল্প গড়ার ক্ষেত্রে আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন এবং তাকে বাস্তবায়িত করার জন্য লড়াই করেছেন। শিল্প প্রসারের জন্য ১৯৯৪ সালে নতুন শিল্প নীতি প্রণয়ন করে যৌথ প্রচেষ্টায় শিল্প গড়ে তোলার কর্মসূচীকে প্রসার করে শিল্পপতিদের উদ্দেশে বার্তা পাঠিয়েছেন—পশ্চিমবঙ্গ শিল্প স্থাপনের অনুকূল রাজ্য। অর্থাৎ বেকার যুবক- যুবতীদের কর্মসংস্থানের নতুন সুযোগ সৃষ্টি করার লক্ষ্যে জ্যোতি বসু নিরবচ্ছিন্নভাবে প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। 

তাঁরই উদ্যোগী ভূমিকার ফলশ্রুতিতে দেশের মধ্যে ও দেশের বাইরে যাঁরা শিল্পে বিনিয়োগ করতে উৎসাহী তাঁদের নিরলসভাবে আকৃষ্ট করতে নজিরবিহীন প্রচেষ্টা নিয়েছিলেন। আবার দেশকে এবং দেশের জনগণকে সব ধরনের সাম্প্রদায়িক ও মৌলবাদী শক্তির প্রভাব থেকে মুক্ত করতে তিনি আপসহীন সংগ্রাম করেছেন। 

জ্যোতি বসু রাজনীতির ঊষালগ্নে শ্রমজীবী মানুষ বিশেষ করে রেল শ্রমিক কর্মচারীদের সংগঠনে যুক্ত থেকে তাঁদের স্বার্থকে রক্ষা করার জন্য লড়াই করেছেন। আর এই ‘রেল- কেন্দ্র’ থেকেই ১৯৪৬ সালে জ্যোতিবাবু বাংলার বিধানসভায় নির্বাচিত হয়ে সংসদীয় রাজনীতিতে প্রত্যক্ষভাবে অংশগ্রহণ করেন, যা চলমান ছিল ২০০০ সাল পর্যন্ত। 

জ্যোতি বাবু সমাজের যে কোন অংশের মানুষকে আকৃষ্ট করার ক্ষমতা দেখিয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গ ও ভারত জ্যোতি বাবুর মতো একজন দক্ষ রাজনীতিককে হারালো। যিনি প্রকৃত অর্থেই ছিলেন একজন অনন্য ও দূরদৃষ্টি সম্পন্ন ‘জননেতা’।

গণশক্তি, ১৮ই জানুয়ারি, ২০১০

Advertisements
Published in: on জুলাই 7, 2013 at 7:12 অপরাহ্ন  মন্তব্য করুন  

The URI to TrackBack this entry is: https://jyotibasu.wordpress.com/2013/07/07/%e0%a6%85%e0%a6%a8%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%af-%e0%a6%a6%e0%a7%82%e0%a6%b0%e0%a6%a6%e0%a7%83%e0%a6%b7%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a6%bf%e0%a6%b0-%e0%a6%9c%e0%a6%a8%e0%a6%a8%e0%a7%87%e0%a6%a4%e0%a6%be/trackback/

RSS feed for comments on this post.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

w

Connecting to %s

%d bloggers like this: